• শিরোনাম

    দৃষ্টিশক্তি বাড়ায় গাজর

    | ২৯ আগস্ট ২০২০ | ১০:২২ অপরাহ্ণ | পড়া হয়েছে 76 বার

    দৃষ্টিশক্তি বাড়ায় গাজর

    গাজর শীতকালীন সহজলভ্য সবজিগুলোর অন্যতম। পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ এ সবজিটিতে রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন কে, ভিটামিন সি, ফাইবার, অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, বিটা ক্যারোটিন ও পটাসিয়াম, যা ক্ষেত্রবিশেষ দারুণ ঔষধের ভূমিকা পালন করতে পারে। এটি দৃষ্টি শক্তি বাড়ানোর পাশাপাশি স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়। একটু ভাল থাকার জন্য আমরা কত কিছুই না করি।

    যদি একটি খাদ্য উপাদান আমাদের দৈনন্দিন খাবারের তালিকায় যোগ করে আরো একটু ভাল রাখতে পারি তাহলে তা কেন নয়? আসুন জেনে নিই একটি গাজর থেকে আপনি কি কি উপকার পাবেন-১. আপনার যদি চোখের সমস্যা থাকে তাহলে গাজর খাওয়া শুরু করে দিন। কারণ গাজর দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়। গাজরে আছে, বিটা ক্যারোটিন, যা আমাদের লিভারে গিয়ে ভিটামিন-এ তে বদলে যায়।



    পরে সেটি চোখের রেটিনায় গিয়ে চোখের দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে, সেই সাথে রাতের বেলায় অন্ধকারেও চোখে ভাল দেখার জন্য দরকারি এমন এক ধরনের বেগুনি পিগমেন্টের সংখ্যা বাড়িয়ে দৃষ্টিশক্তি ভাল রাখতে সাহায্য করে। ২. গাজরে আছে ফ্যালকেরিনল এবং ফ্যালকেরিনডায়ল, যা আমাদের শরীরে অ্যান্টিক্যান্সার উপাদানগুলোকে পূর্ণ করে। ফলে গাজর খেলে ব্রেস্ট, কোলন, ফুসফুসের ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি অনেকটাই কমে যায়।

    ৩. গাজর শুধু শরীরের জন্য ভাল তাই নয়, এটি আমাদের জন্য অ্যান্টি এজিং উপাদান হিসেবেও কাজ করে। এতে যে বিটা ক্যারোটিন আছে তা আমাদের শরীরের ভেতরে গিয়ে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে আমাদের শরীরের ক্ষয়প্রাপ্ত কোষগুলোকে পরিপূর্ণতা দান করে। ৪. ত্বক সুন্দর রাখার জন্যও গাজর খেতে পারেন। কারণ গাজর আপনার ত্বককে ভেতর থেকে সুন্দর করে তুলতে সাহায্য করবে। এর ভিটামিন এ ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আপনার ত্বকের রোদে পোড়া ভাব দূর করবে।

    সেই সাথে ভিটামিন এ ত্বকের অযাচিত ভাঁজ পড়া, কালো দাগ, ব্রন, ত্বকের রঙের অসামঞ্জস্যতা ইত্যাদি দূর করে আপনাকে সুন্দর হয়ে উঠতে সাহায্য করবে। ৫. এছাড়াও গাজর ভাল অ্যান্টিসেপ্টিক হিসেবেও কাজ করে। এটি শরীরে কোনো ক্ষত হলে তা ইনফেকশন হওয়া থেকে রক্ষা করে। কোথাও কেটে বা পুড়ে গেলে সেখানে লাগিয়ে নিন কুচি করা গাজর বা সিদ্ধ করা গাজরের পেস্ট। আপনার ইনফেকশন হওয়ার আশঙ্কা থাকবে না। ৬. সুন্দর ও সুস্থ্য সবল দাঁতের জন্য গাজরের জুড়ি নেই।

    গাজর আপনার দাঁত ও মুখের ভেতর পরিষ্কার রাখে। গাজরের মিনারেলগুলো দাঁত মজবুত রাখতে সাহায্য করে। ৭. গাজর স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় দ্বারা পরিচালিত সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, যারা সপ্তাহে ছয়টির বেশি গাজর খান বা খাচ্ছেন তাদের স্ট্রোকের ঝুঁকি যারা এর থেকে কম পরিমানে কম বা একটি গাজর খাচ্ছেন তাদের তুলনায় অনেক কম হয়। তাই স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে হলে এখনি নিজের খাবারের তালিকায় যুক্ত করুন গাজর।

    সালাদ হিসেবেও খেতে পারেন বা তরকারিতেও দিতে পারেন।গাজর শীতকালীন সহজলভ্য সবজিগুলোর অন্যতম। পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ এ সবজিটিতে রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন কে, ভিটামিন সি, ফাইবার, অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, বিটা ক্যারোটিন ও পটাসিয়াম, যা ক্ষেত্রবিশেষ দারুণ ঔষধের ভূমিকা পালন করতে পারে। এটি দৃষ্টি শক্তি বাড়ানোর পাশাপাশি স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়।

    একটু ভাল থাকার জন্য আমরা কত কিছুই না করি। যদি একটি খাদ্য উপাদান আমাদের দৈনন্দিন খাবারের তালিকায় যোগ করে আরো একটু ভাল রাখতে পারি তাহলে তা কেন নয়? আসুন জেনে নিই একটি গাজর থেকে আপনি কি কি উপকার পাবেন-১. আপনার যদি চোখের সমস্যা থাকে তাহলে গাজর খাওয়া শুরু করে দিন। কারণ গাজর দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়।

    গাজরে আছে, বিটা ক্যারোটিন, যা আমাদের লিভারে গিয়ে ভিটামিন-এ তে বদলে যায়। পরে সেটি চোখের রেটিনায় গিয়ে চোখের দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে, সেই সাথে রাতের বেলায় অন্ধকারেও চোখে ভাল দেখার জন্য দরকারি এমন এক ধরনের বেগুনি পিগমেন্টের সংখ্যা বাড়িয়ে দৃষ্টিশক্তি ভাল রাখতে সাহায্য করে।

    ২. গাজরে আছে ফ্যালকেরিনল এবং ফ্যালকেরিনডায়ল, যা আমাদের শরীরে অ্যান্টিক্যান্সার উপাদানগুলোকে পূর্ণ করে। ফলে গাজর খেলে ব্রেস্ট, কোলন, ফুসফুসের ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি অনেকটাই কমে যায়। ৩. গাজর শুধু শরীরের জন্য ভাল তাই নয়, এটি আমাদের জন্য অ্যান্টি এজিং উপাদান হিসেবেও কাজ করে।

    এতে যে বিটা ক্যারোটিন আছে তা আমাদের শরীরের ভেতরে গিয়ে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে আমাদের শরীরের ক্ষয়প্রাপ্ত কোষগুলোকে পরিপূর্ণতা দান করে। ৪. ত্বক সুন্দর রাখার জন্যও গাজর খেতে পারেন। কারণ গাজর আপনার ত্বককে ভেতর থেকে সুন্দর করে তুলতে সাহায্য করবে।

    এর ভিটামিন এ ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আপনার ত্বকের রোদে পোড়া ভাব দূর করবে। সেই সাথে ভিটামিন এ ত্বকের অযাচিত ভাঁজ পড়া, কালো দাগ, ব্রন, ত্বকের রঙের অসামঞ্জস্যতা ইত্যাদি দূর করে আপনাকে সুন্দর হয়ে উঠতে সাহায্য করবে। ৫. এছাড়াও গাজর ভাল অ্যান্টিসেপ্টিক হিসেবেও কাজ করে।

    এটি শরীরে কোনো ক্ষত হলে তা ইনফেকশন হওয়া থেকে রক্ষা করে। কোথাও কেটে বা পুড়ে গেলে সেখানে লাগিয়ে নিন কুচি করা গাজর বা সিদ্ধ করা গাজরের পেস্ট। আপনার ইনফেকশন হওয়ার আশঙ্কা থাকবে না। ৬. সুন্দর ও সুস্থ্য সবল দাঁতের জন্য গাজরের জুড়ি নেই।

    গাজর আপনার দাঁত ও মুখের ভেতর পরিষ্কার রাখে। গাজরের মিনারেলগুলো দাঁত মজবুত রাখতে সাহায্য করে। ৭. গাজর স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় দ্বারা পরিচালিত সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, যারা সপ্তাহে ছয়টির বেশি গাজর খান বা খাচ্ছেন তাদের স্ট্রোকের ঝুঁকি যারা এর থেকে কম পরিমানে কম বা একটি গাজর খাচ্ছেন তাদের তুলনায় অনেক কম হয়। তাই স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে হলে এখনি নিজের খাবারের তালিকায় যুক্ত করুন গাজর। সালাদ হিসেবেও খেতে পারেন বা তরকারিতেও দিতে পারেন।

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    Archive Calendar

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০