• শিরোনাম

    দুর্বৃত্তদের হামলার পর সারাদেশে মাঠ প্রশাসনে কর্মকর্তাদের সর্ব্বোচ সর্তক থাকার নির্দেশ

    | ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ১১:১৫ অপরাহ্ণ | পড়া হয়েছে 69 বার

    দুর্বৃত্তদের হামলার পর সারাদেশে মাঠ প্রশাসনে কর্মকর্তাদের সর্ব্বোচ সর্তক থাকার নির্দেশ

    দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমের সরকারি বাসভবনে ভোররাতে দুর্বৃত্তদের হামলার পর সারাদেশে মাঠ প্রশাসনে কর্মকর্তাদের সর্ব্বোচ সর্তক থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে অফিস, বাসভবনসহ তাদের চলাফেরায় নিরাপত্তা বাড়ানো হচ্ছে। জনপ্রশাসন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

    সূত্রমতে, ঘোড়াঘাট ইউএনও’র ওপর হামলা ডাকাতি না অন্য কোন উদ্দেশ্য হয়েছে তা এখনো পরিষ্কার হতে পারেনি পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসন। তবে এ ধরনের হামলাকে সাধারণ কোন ঘটনা হিসেবে নিতে রজি নন তারা। সেজন্য সারাদেশে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্র্তাদের সর্ব্বোচ সর্তক অবস্থায় থাকতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছে।



    স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে কর্মকর্তাদের নিরাপত্তা বাড়ানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বেশ কয়েকজন জেলা প্রশাসক গণমাধমের সঙ্গে আলাপকালে জানান, ইউএনও, সহকারি কমিশনার, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ মাঠপ্রশাসনে কাজ করার কর্মকর্তারা সর্তকভাবে চলাফেরা করার নির্দেশ দিয়েছি।

    এ ব্যাপারে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (মাঠপ্রশাসন) রফিকুল ইসলাম বলেন, দিনাজপুরে যে ঘটনাটি ঘটেছে তা খুবই উদ্বেগজনক। এতে মাঠ প্রশাসনে কাজ করা কর্মকর্তাদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। সেজন্য আমরা তাদেরকে সর্তক থাকার পাশাপাশি নিরাপত্তা বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছি। তিনি বলেন, খুবই শিগগিরই নিরাপত্তা সংক্রান্ত একটি নিদের্শনা দেয়া হবে।

    জানা গেছে, উপজেলা সরকারের নানা উন্নয়ন ও প্রশাসনিক কাজ করতে গিয়ে অনেক সময় স্থানীয়দের তোপের মুখে পড়তে হয় ইউএনওদের। অবৈধ স্থাপনা, জায়গা উচ্ছেদ করতে গিয়ে হামলার শিকার হতে হয় তাদের। তবে বাসায় গভীর রাতে এ ধরনের ঘটনা বিরল বলে মনে করছেন প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

    এদিকে, আহত ইউএনওকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে রাজধানীর নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে আনা হয়েছে বলে সচিবালয়ে সংবাদিকদের জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। এর আগে দুপুর ১টার দিকে আহত ইউএনওকে রংপুর কমিউনিটি হাসপাতাল থেকে হেলিকপ্টারে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। আগে গতকাল ভোররাতেই রক্তাক্ত অবস্থায় ইউএনওকে উদ্ধার করে প্রথমে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে তাকে রংপুর কমিউনিটি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

    সংবাদ পেয়ে সকালে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম ও পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেনসহ পুলিশের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে যান। দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম বলেন, আমি মনে করি এটি একটি পরিকল্পিত হামলা। ঘোড়াঘাট ইউএনও ওয়াহিদা খানমের স্বামী রংপুর জেলার পীরগঞ্জ ইউএনও হিসেবে কর্মরত আছেন। ওয়াহিদা খানমের সঙ্গে তার বাবা ওমর আলী থাকতেন।

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    সালমান শাহ’র মৃত্যুর ২৩ বছর

    ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

    বাবা হলেন রুবেল

    ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

    Archive Calendar

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০