• শিরোনাম

    করোনা ঠেকাতে পুষ্টিকর খাবারের বিকল্প নেই

    | ২৩ মার্চ ২০২০ | ১:৪১ অপরাহ্ণ | পড়া হয়েছে 220 বার

    করোনা ঠেকাতে পুষ্টিকর খাবারের বিকল্প নেই

    বিশ্বব্যাপী মহামারি আকার ধারণ করেছে করোনা ভাইরাস। শুরুতে এর কোন প্রতিষেধক ছিল না। তবে বহু চেষ্টার পর সফলভাবে প্রতিষেধক আবিষ্কার করা সম্ভব হয়েছে। কিন্তু এখনই চাহিদার তুলোনায় তা অপ্রতুল। ফলে করোনার চিকিৎসা ও ব্যবস্থাপনা দুরূহ। বিশেষ করে আমাদের মতো জনবহুল ও অপ্রতুল চিকিৎসাব্যবস্থায় করোনার সংক্রমণ মোকাবিলা করা খুবই কঠিন কাজ। তবে বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে- যাদের শরীরে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি তারা করোনায় আক্রান্ত হলেও ভাইরাসটি প্রতিরোধ সক্ষম।

    এখন প্রশ্ন উঠতে পারে কীভাবে ইমিউনিটি বা শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ান যাবে? সে ক্ষেত্রে বলতে হবে- প্রথমেই প্রয়োজন ব্যক্তিগত সচেতনতা গড়ে তোলা।



    করোনা প্রতিরোধের উপায়গুলো মেনে চলার পাশাপাশি প্রয়োজন শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা অর্থাৎ ইমিউন সিস্টেম বাড়িয়ে তোলা। এতে করে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের যে মারাত্মক লক্ষ্মণ অর্থাৎ রেসপিরেটরি এবং গ্যাস্ট্রোইনটেসটিন্যাল সংক্রমণের ঝুঁকি প্রতিরোধ করা যাবে।

    করোনা ভাইরাস হচ্ছে- প্রোটিন কোটের একটা খারাপ বিষয়, যার কারণে জ্বর, কাশি, শ্বাসকষ্টের মত এমনকি (নতুনভাবে) মারাত্মক নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হতে পারে। এই ভাইরাসটি আমাদের শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। তাই শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য বেশি পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে।

    অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হলো কিছু ভিটামিন, খনিজ (মিনারেল) ও এনজাইম, যা শরীরের ক্ষতিকর ফ্রি রেডিক্যালের (দেহের কোষ, প্রোটিন ও ডিএনএকে ক্ষতিগ্রস্ত করে) বিরুদ্ধে লড়াই করে শরীরের কোষগুলোকে ক্ষতির হাত থেকে বাঁচিয়ে, শরীরে জীবাণু সংক্রমণের ঝুঁকি প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে।

    মূলত পাঁচ ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। এগুলো হলো: ভিটামিন-এ, সি, ই, বিটা-ক্যারোটিন, লাইকোপেন, লুটেইন সেলেনিয়াম ইত্যাদি।

    পুষ্টিসমৃদ্ধ যেসব খাবার বেশি করে খেতে হবে। যেমন – আপনি বেশি বেশি সবজি খেতে পারেন। এর মধ্যে লেবু, করলা (কোয়ারসেটিন, কেয়েমপফেরল, বিটা-ক্যারোটিন সমৃদ্ধ), বেগুনি বা লাল বাঁধাকপি, বিট, ব্রকোলি, গাজর, টমেটো, মিষ্টি আলু, ক্যাপসিকাম, ফুলকপি খেতে পারেন।

    এছাড়া শাকের মধ্যে পালংশাক এবং অন্যান্য সবুজ শাক খাওয়া উচিৎ।

    ফলের মধ্যে – কমলালেবু, পেঁপে, আঙুর, আম, কিউই, আনার, তরমুজ, বেরি, জলপাই, আনারস ইত্যাদি খেতে পারেন।

    মসলার মধ্যে আদা, রসুন, হলুদ, দারুচিনি, গোলমরিচ রাখা যেতে পারে।

    এছাড়া সিমের বিচি, মটরশুঁটি, বিচিজাতীয় খাবার, বার্লি, ওটস, লাল চাল ও আটা এবং বাদাম তালিকায় রাখুন।

    টক দই (প্রোবায়োটিক) শ্বাসযন্ত্র ও গ্যাস্ট্রোইনটেসটিন্যাল সংক্রমণের ঝুঁকি প্রতিরোধ করে। অন্য দিকে শাক-সবজি, ফল, বাদামজাতীয় খাবার শরীরে নিউটোভ্যাক্স ভ্যাকসিনের অ্যান্টিবডি প্রক্রিয়াকে উন্নত করে, যা স্টেপটোকোক্কাস নিউমোনিয়া প্রতিরোধে সক্রিয় ভুমিকা রাখে।

    সবুজ চা (গ্রিন টি) ও ব্ল্যাক টিতে এল–থিয়ানিন ও ইজিসিজি নামের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে, যা আমাদের শরীরে জীবাণু প্রতিরোধের যৌগ তৈরি করে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এছাড়া ভিটামিন বি-৬, জিংক জাতীয় খাবার (বিচিজাতীয়, বাদাম, সামুদ্রিক খাবার, দুধ ইত্যাদি) বেশি খেতে হবে।

    সেই সঙ্গে স্বল্প পরিমাণের ঘুম শরীরে কর্টিসল হরমোনের চাপ বাড়িয়ে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেয়, তাই পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমাতে হবে।অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের খুব ভালো কাজ পেতে হলে খাবার রান্নার সময় অতিরিক্ত তাপে বা দীর্ঘ সময় রান্না না করে পরিমিত তাপমাত্রায় রান্না করতে হবে। কিছু খাবার যেমন ফল, লেবু, সালাদ ইত্যাদি তাজা অবস্থায় সরাসরি খাওয়া ভালো। সামগ্রিকভাবে উদ্ভিজ্জ খাবারই হলো অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের সবচেয়ে ভালো উৎস। বিশেষ করে বেগুনি, নীল, কমলা,ও হলুদ রঙের শাক-সবজি।

    তবে কিছু খাবার দৈনিক তালিকা থেকে বাদ দিতে হবে। যেমন- কার্বনেটেড ড্রিংকস, বিড়ি, সিগারেট, জর্দা, তামাক, সাদাপাতা, খয়ের—এগুলো রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতায় বাধা দিয়ে ফুসফুসের সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ায়। ঠান্ডা খাবার, যেমন আইসক্রিম, চিনি ও চিনির তৈরি খাবার ভাইরাসের সংক্রমণে সহায়তা করে।

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    Archive Calendar

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০